aimatropawakhabor
সকাল
শরীয়তপুর, বৃহস্পতিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী, ২০২১ইং
aimatropawakhabor
শরীয়তপুর, বৃহস্পতিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী, ২০২১ইং
ব্রেকিং নিউজ
শিরোনাম
শিরোনাম    শরীয়তপুর-৩ আসনের সংসদ সদস্য ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ আন্তর্জাতিক বিষয়ক উপ-কমিটির সদস্য আলহাজ্ব নাহিম রাজ্জাক বলেছেন, করোনা মহামারির মধ্যেও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দেশের উন্নয়ন থেমে নেই।    পোনে ২শ কোটি মুসলমান যখন কাদ মিলাবে মুসলমানদের বিজয়ের নিশানা ওয়াশিংটনে উড়তে দেখা যাবে- পীরজাদা হানজালা    ১৫ই আগস্ট উপলক্ষে পাইকবাড়ি জামে মসজিদসহ সখিপুরের বিভিন্ন মসজিদে দোয়া এবং মিলাদ মাহফিল    আজ শরীয়তপুর জেলার সখিপুর থানা যুবলীগের আওতাধীন সখিপুর ইউনিয়ন যুবলীগের উদ্যোগে বৃক্ষ রোপন কর্মসূচী পালন করা হয়।    করোনার মহামারিতে জমি দখলকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষে ৯ বছরের শিশু এবং যুবক আহত।    কুমিল্লার হোমনায় নতুন ত্রাণ কমিটি গঠন..    ঈদ কেনাকাটার জন্য খুলছে না বৃহত্তম দুই শপিং কমপ্লেক্স যমুনা ফিউচার পার্ক এবং বসুন্ধরা শপিং কমপ্লেক্স    প্রতিদিনই ভাঙ্গছে পূর্বের রেকোর্ড গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে একদিনে সর্বোচ্চ ৭৯০ জনের দেহে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে দেশে ভাইরাসটিতে মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়াল ১১ হাজার ৭১৯ জনে।   

ঈদ কেনাকাটার জন্য খুলছে না বৃহত্তম দুই শপিং কমপ্লেক্স

০৬-মে-২০২০, রাত ৭:৪৪     ২৫২

itpoka

অনলাইন ডেস্ক- 

রমজান ও ঈদুল ফিতরকে সামনে রেখে সীমিত পরিসরে দোকানপাট ও শপিং মল আগামী ১০ মে থেকে চালু রাখার নির্দেশনা দিয়েছে সরকার। তবে করোনা পরিস্থিতির কথা বিবেচনা করে রাজধানীর অন্যতম দুই শপিং কমপ্লেক্স না খোলার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। রাজধানী ও দেশের অন্যতম বড় দুই শপিং কমপ্লেক্স বসুন্ধরা সিটি ও যমুনা ফিউচার পার্ক বন্ধই থাকবে।

করোনাভাইরাস বিস্তার রোধে মানুষের জীবনের কথা চিন্তা করে আগামী ঈদ বাজারের জন্য খুলছে না দেশের সর্ববৃহৎ শপিং মল বসুন্ধরা সিটি শপিং কমপ্লেক্স। বসুন্ধরা গ্রুপের গণমাধ্যম উপদেষ্টা মোহাম্মদ আবু তৈয়ব বাংলা ট্রিবিউনকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি বাংলা ট্রিবিউনকে জানিয়েছেন, ‘বসুন্ধরা গ্রুপের চেয়ারম্যান আহমেদ আকবর সোবহানের নির্দেশেই এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। বসুন্ধরা গ্রুপের এমন সিদ্ধান্তের সঙ্গে একমত পোষণ করে মার্কেটের ব্যবসায়ীরাও ঈদের সময় মার্কেট না খোলার পক্ষে অভিমত ব্যক্ত করেছেন। তাদের সঙ্গে আমাদের আলাপ-আলোচনা হয়েছে। বসুন্ধরা গ্রুপের সব সিদ্ধান্ত মেনেই ব্যবসা পরিচালনা করবেন, এমন শর্তেই চুক্তিবদ্ধ হয়েছেন তারা।’

ঈদের সময় বসুন্ধরা সুপার মল না খোলার সিদ্ধান্তে সরকারের কোনও আদেশ বা নির্দেশ অমান্য করা হবে না জানিয়ে মোহাম্মদ আবু তৈয়ব জানান, ‘শুধু বাংলাদেশ নয়, এটি এই অঞ্চলের বৃহৎ শপিং মল। এখানে সীমিত পরিসরে ব্যবসা পরিচালনা করা বা দোকান খোলার কোনও সুযোগ নেই। ঈদের সময় এ মার্কেট খুললে প্রতিদিন কয়েক লাখ মানুষের সমাগম হবে। এটা কোনোভাবেই রোধ করা যাবে না। আর এমনটি যদি হয়, তাহলে সেখানে স্বাস্থ্যঝুঁকি দেখা দেবেই। এতে কোনও সন্দেহ নেই। তাই সাধারণ মানুষের জীবনের কথা চিন্তা করেই বসুন্ধরা গ্রুপের চেয়ারম্যান এমন সিদ্ধান্ত দিয়েছেন।’

উল্লেখ্য, বসুন্ধরা সিটি শপিং মল ২০০৪ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়। এটি বাংলাদেশে অবস্থিত সর্ববৃহৎ শপিং মল। রাজধানীর পান্থপথের সোনারগাঁও হোটেলের কাছে সার্ক ফোয়ারার পশ্চিম দিকে বসুন্ধরা সিটি শপিং মল অবস্থিত। মার্কেটটি ১০ তলাবিশিষ্ট। মার্কেটের মধ্যে দুই হাজার ৯০০টি দোকান রয়েছে। ব্লক রয়েছে চারটি। এই শপিং মলে দোতলা আন্ডার গ্রাউন্ড রয়েছে। শপিং মলের গ্রাউন্ড ফ্লোরে ১২০০টি গাড়ি পার্ক করা যায়। নিরাপত্তার জন্য প্রশিক্ষিত ৪৫০ জন নিরাপত্তাকর্মী আছে এই মার্কেটে।

এদিকে আসন্ন ঈদে রাজধানীর কুড়িলে অবস্থিত যমুনা ফিউচার পার্কও না খোলার সিদ্ধান্ত নিয়েছে কর্তৃপক্ষ। যমুনা গ্রুপের পরিচালক ডক্টর মোহাম্মদ আলমগীর আলম স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য নিশ্চিত করা হয়েছে।

বুধবার (৬ মে) যমুনা গ্রুপের পরিচালক ডক্টর মোহাম্মদ আলমগীর আলম স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, ‘সর্বোচ্চ সুরক্ষা প্রস্তুতি সত্ত্বেও করোনা মহামারি সর্বোচ্চ পর্যায়ে যাওয়ায় হাজারও মানুষের সংক্রমণ ও মৃত্যুঝুঁকি এড়াতে যমুনা ফিউচার পার্ক আপাতত খুলছে না। বাঁচতে হলে সবাইকে অবশ্যই বাসায় অবস্থান করতে হবে। না হলে মৃত্যুঝুঁকি বাড়বেই।’

বিজ্ঞপ্তিতে তিনি আরও লিখেছেন, ‘যমুনা গ্রুপের কাছে দেশ আগে, জীবন আগে, ব্যবসা পরে। তাই বন্ধ ব্যবসায় ১৫ কোটি টাকার ত্রাণ কার্যক্রমের পর এখন শপিং মল নিজেরাই বন্ধ রেখে আয়ের পথে তালা দিয়েছে দেশের মানুষের প্রতি ভালোবাসার তাগিদেই।’

এতে আরও বলা হয়, যমুনা ফিউচার পার্কের সর্বস্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারী, দোকান মালিক-কর্মকর্তা-কর্মচারী সবাইকে আপাতত পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত যমুনা ফিউচার পার্কে না এসে সার্বক্ষণিক বাসায় পরিবারের সঙ্গে নিরাপদে অবস্থান করতে অনুরোধ জানানো যাচ্ছে।’

উল্লেখ্য, জনগণের চলাচলে নিষেধাজ্ঞা শিথিল করে রমজান ও ঈদুল ফিতরকে সামনে রেখে সীমিত পরিসরে দোকানপাট ও শপিং মল আগামী ১০ মে থেকে চালু রাখার নির্দেশনা দিয়েছে সরকার। নির্দেশনায় বলা হয়েছে, শর্তসাপেক্ষে পরিস্থিতি বিবেচনা করে দেশের বিভিন্ন জেলা ও উপজেলায় অভ্যন্তরীণভাবে ব্যবসা-বাণিজ্য, দোকানপাট-শপিং মলসহ অন্যান্য কার্যাবলি আগামী ১০ মে থেকে খুলে দেওয়ার ব্যবস্থা করার জন্য অনুরোধ জানানো হলো। তবে এক্ষেত্রে আন্ত-উপজেলা যোগাযোগ ও চলাচল কঠোরভাবে নিয়ন্ত্রণ করতে হবে।

আদেশে আরও বলা হয়েছে, হাটবাজার, ব্যবসা কেন্দ্র, দোকানপাট, শপিং মলগুলো খোলা সকাল ১০টা থেকে বিকাল ৪টার মধ্যে সীমিত রাখতে হবে। সেই সঙ্গে প্রতিটি শপিং মলে প্রবেশের ক্ষেত্রে হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহারসহ স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় ঘোষিত সতর্কতা গ্রহণ করতে হবে।


জাতীয়

সর্বশেষ খবর

সর্বাধিক পঠিত